প্যানডেমিকের প্রথম ধাক্কা, ডাল্টনের বন্ড ও অন্ধত্বের সারামাগো

কোন ধরণের ভারি কথা বা চিন্তা মাথায় আসছেনা। গতকাল রাত জেগে বন্ড এক্টর টিমোথি ডাল্টনকে নিয়ে পড়লাম। যৌবনে এই লোক অসম্ভব সুদর্শন ছিলেন। শন কনোরি বন্ড হিসেবে অবসর নেবার পর তাকেই প্রথম এপ্রোচ করেছিল প্রডিউসাররা। ডাল্টন বলেছিলেন, ‘কোন বিখ্যাত রোলে রিপ্লেসমেন্ট ভাল আইডিয়া, কিন্তু পূর্বসূরি যদি হয় কনোরির মত কেউ,

লস্কর মিয়ার জামাই

লস্কর মিয়া তার লুঙ্গি কাছা মারল। যে কোন সময় হয়ত ছুট দেয়া লাগবে। বাঁদরটার মতিগতি খারাপ। শুরু থেকেই দাঁত খিঁচানি দিচ্ছে। তৈয়বের এই বাঁদর সন্ত্রাসীদের মত আচরণ করে। আগেরবার সে যখন এসেছিল, বাঁদর তাকে ঘরেই ঢুকতে দেয়নি। দূর থেকে কয়েকবার ডেকে তৈয়বের সাড়া না পেয়ে ফিরে গিয়েছিল সে। প্রথমে সে

আমরা কী বলি যখন ভালবাসা নিয়ে বলি ● রেমন্ড কারভার

আমেরিকান লেখক রেমন্ড কারভারের খোঁজ আমি পেয়েছিলাম তার এক ভাবশিষ্যের কাছে। হারুকি মুরাকামি। আত্মজৈবনিক What I Talk About When I Talk About Running নামটা তিনি ধার করেছিলেন গুরুর What We Talk About When We Talk About Love থেকেই। কেমন নেশা ধরানো ব্যাপার আছে কারভারের লেখায়, বলতে অস্বস্তি লাগে চেনা জীবনের

পাবলিক সেন্টিমেন্ট নিয়ে রাষ্ট্রীয় খেলাধুলার সহজ কৌশল

রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত মিডিয়া বা চতুর সেলেব্রিটিগণ কিভাবে জনগণকে যা ইচ্ছা তাই করাতে পারে? কোন ধরণের অবিচার বা অনিয়ম নিয়ে ইয়ার্কির ইশারা দেওয়া হয়। মানে ঐ জিনিসটাকে কোন একভাবে ফানি পয়েন্ট অব ভিউ থেকে তুলে ধরা হয় পাবলিকের সামনে। এর একটা উদাহরণ দেয়া যেতে পারে পপুলার আমেরিকান টিভি শো স্যাটারডে নাইট

মেয়েরা বহু-বিবাহ করলে যা হতে পারে

ইসলাম ধর্মে চার বিবি জায়েজের কথা আমি শুধু শুনেছি বা পড়েছি। চার বিবি আছে এমন লোকের সঙ্গে আমার কখনও দেখা হয়নাই।
ভারতের হিমাচল প্রদেশের কিন্নরে এখনও এক নারীর কয়েকজন পতি গ্রহণ করার চল আছে। সেখানে যারা এই ব্যাপারটা চর্চা করে, তাদের বিশ্বাস তারা পাণ্ডবদের উত্তরাধিকার। মহাভারতের বনপর্বে কিন্নরের পার্বত্য অঞ্চলে পাণ্ডবদের নির্বাসনের ঘটনা পাওয়া যায়। অবশ্য ঐতিহাসিভাবে বিতর্ক আছে যে কিন্নরের জনগণ পাণ্ডবদের বহু আগে থেকেই মেয়েদের বহুবিবাহ চর্চা করত।

বুকোওস্কি কেন চেষ্টা করার বিপক্ষে ছিলেন

লেখক হতে চাওয়া এক যুবকের গল্প বলে ফ্যাকটোটাম। শব্দটার মানেই হল জীবিকার জন্য যে সব ধরণের কাজ করে। যুবকটির নাম হ্যাংক চেইনস্কি। হ্যাংক নিজের ইচ্ছের বিরুদ্ধে কোন কাজই করতে পারেনা। ইচ্ছেটা কি? লেখক হয়ে ওঠা। কিন্তু লিখতে হলে ব্রেড আর ওয়াইন দরকার, প্রচন্ড মদ্যপ হিসেবে মূলত মদই দরকার। টাকা কামাই

সেরা তিন দার্শনিক কৌতুক

মন খারাপ থাকলে মাঝেমধ্যে বৈদেশী কৌতুক পড়তাম আমি। কোন কোনটা এতই ভাল হত যে পাঠান্তে পরপর সাতদিন হাসি আসত। এক পর্যায়ে হাসি থামাতে লোকাল বাসে চড়তাম আমি, অফিসে লেট করে যেতাম কিংবা দৈনিক পত্রিকার প্রথম পৃষ্ঠার দিকে চেয়ে থাকতাম হয় সাড়ে উনিশ মিনিট। ওসবের মধ্যে সেরা কৌতুকগুলো নিজের ভাষায় রূপান্তর