জ্ঞান বনাম তথ্য

অধিকাংশ মানুষ দেখবেন তথ্য আর জ্ঞানকে এক মনে করে। এর রিফ্লেকশন পপুলার বই, সিনেমা বা বিজ্ঞাপনে দেখা যায়। ওদিন এক সিনেমায় দেখলাম, নায়িকার বড় ভাই নায়ককে জিজ্ঞেস করছে, ‘বলো দেখি ছোঁড়া, হুতোম প্যাঁচা কটা ব্রাক্ষণের টিকি কেটেছিল?’ আত্মবিশ্বাসী নায়ক মৃদু কণ্ঠে জানাল, ‘আজ্ঞে, ৫১টি।’ ‘শাবাশ। বিস্তারিত বলো, খুলে বলো।’ ‘জ্বি।

আমাদের সময়ে শিল্প-সাহিত্যের কী প্রয়োজন

১ হেমন্তের এক মেঘলা সকালে প্রশ্নটির মুখোমুখি হই আমি। যখন এ মহানগরে লোকজনের ছুটবার কথা যার যার কর্মস্থলে। তারা ছুটছেও। জানালার নিচে পথের ধার ঘেঁষে বসেছে অস্থায়ী কাঁচাবাজার। ভেসে আসছে মানুষ ও যানবাহনের শোরগোল। এমন সকাল শুধুমাত্র হেমন্তের কারণেই গ্রীষ্ম কিংবা বর্ষার চেয়ে ভিন্ন। আবহাওয়ার পরিবর্তন ছাড়া আর কী নতুনত্ব

কেন বই পড়ি

১ বই কেন পড়ি আমি? এই প্রশ্ন অন্যরা যতটা করে আমাকে, তারচেয়ে বেশি নিজেই নিজেকে করি। এতে কি আনন্দ পাওয়া যায়? ভ্রমণের, অন্যদের চিন্তার জগতে ঢুকে পড়বার, কল্পনার অসীম প্রান্তরে ঘুরে বেড়াবার আনন্দ? হ্যাঁ যায়। বই কি আমাকে জ্ঞানার্জনে সাহায্য করে? খুব সামান্য। যা পড়ি, তার দশ শতাংশই হয়ত মনে

error: লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন